--- বিজ্ঞাপন ---

মুজুরি বৃদ্ধি ও কারখানার উপর্যুক্ত পরিবেশের দাবিতে শ্রমিক কর্মবিরতি

0

জয়নাল আবদেীন: গত ১৯ জানুয়ারি, চট্টগ্রাম নগরীর শিল্পাঞ্চল ষোলশহর এলাকার কীটনাশক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সিনজেনটা বাংলাদেশ লিমিটেড নামের একটি কারখানায় অস্থায়ী শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি বৃদ্ধি ও কারখানার উপর্যুক্ত পরিবেশের দাবিতে শ্রমিক কর্মবিরতি শুরু হয়।
শ্রমিকরা বলেছেন, কর্তৃপক্ষের সাড়া না পেলে কর্মবিরতি চলবে। এই প্রতিষ্ঠানটা চালু হয় ১৯৬৫ সালে। এর ১৯৯৬ সালে “সিবা-গেইনী” এবং সানডোজ একত্রিত হয়ে নামধারণ করে নোভার্টিজ। ২০০০ সালে নোভার্টিজ এগ্রিবিজনেস এবং এষ্টাজেনেকা এগ্রো কেমিক্যালস একত্রিত হয়ে সিনজেনটা। আর আজকের সিনজেনটা বাংলাদেশ লিমিটেড, সিনজেনটা পার্টিসিপেশনস এজি, বাসেল সুইজারল্যান্ড এর সাবসিডিয়ারী কোম্পানী। যা সিনজেনটা পার্টিসিপেশনস পার্র্টিসিপেশনস এজি এবং বিসিআইসি এর একটি যৌথ অংশীদারি বালাইনাশক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। কোম্পানী এমএসডিএস (মেটারিয়াল সেফটি ডাটাশীপ) অনুযায়ী উৎপাদনকৃত প্রোডাক্টটের মারাত্মক স্বাস্থ্যহানির তথ্য (ক্যান্সার, প্রজনন ক্ষমতা ধ্বংস করা) উল্লেখ থাকা স্বত্ত্বেও ওখানে উপর্যুক্ত পরিবেশ নিশ্চিয়তা না করে সাইট ম্যানেজার (শামীম আলম) শ্রমিকদেরকে কাজ করতে বাধ্য করায়। যেখানে শ্রমিকরা কাজ করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে কোন রকম সহযোগীতা না করে চাকুরিচ্যুত করা হয়, হুমকি দেয়া হয় এবং এমন কিছু শ্রমিক নিয়োজিত আছে যারা ১৫ বছরের উপরে তাদের সাথে কোন রকমের মানবিক আচরণও করা হয় না।
প্রতিনিয়ত বিষ উৎপাদনকারী এলাকায় কোন রকম নিরাপত্তা বিধান না করে প্রতিনিয়ত কাজ করতে বাধ্য করায় শ্রমিকরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় শ্রমিকরা সাইড ম্যানেজার শামীম আলমের শরণাপন্ন হলে আবেদনকৃত ইস্যু অমিমাংশিত থেকে যায়। উল্লেখ্য যে, কয়েক মাস আগে রিজভী নামে এক শ্রমিকের চোখে ক্ষতিকর কেমিক্যাল পড়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে ওকে কোনরকম চিকিৎসা সহযোগিতা না করে পরের দিন ওকে চাকরিচ্যুত করা হয়। ওর পরিবার সাইড ম্যানেজার (শামীম আলম) কে আকুল আবেদন করার পরও কোনরকম সহযোগিতা না দিয়ে অমানবিক আচরণ করে। শ্রমিকদের পক্ষ থেকে প্রতিষ্ঠানের প্রধান পরিচালক বরাবরে শামীম আলমের বিরুদ্ধে এর আগেও বেশ কয়েকবার অভিযোগ করার পরও তার কোন ব্যবস্থা মালিকপক্ষ নেয়নি।
কারখানায় কর্মরত অস্থায়ী শ্রমিকদের উপর্যুক্ত পরিবেশ নিশ্চিতকরণ, মানবিক আচরণ, চিকিৎসা সহযোগিতা, চাকুরি প্রক্রিয়াকরণের স্থায়ীকরণ ও কোম্পানীর প্রক্রিয়ায় আনয়নের জন্য শ্রমিকরা শান্তিপূর্ণ অবরোধ চালিয়ে যাচ্ছে। এমতাবস্থায় আন্দোলনরত শ্রমিকরা এর সঠিক সমাধানের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছে।

আপনার মতামত দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.