--- বিজ্ঞাপন ---

বিমান ছিনতাইকারী পলাশের সঙ্গে শিমলার পরিচয়, বিয়ে এবং ডিভোর্স

0
শিমলার সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহুর্তে পলাশ। ফাইল ছবি।

নিউজ ডেস্ক: চট্টগ্রামে বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের ঘটনায় গতকাল বুধবারই নাম উঠে এসেছিল চিত্রনায়িকা শিমলার। ছিনতাইকারী মাহাদী ওরফে মাহাবী ওরফে পলাশের সঙ্গে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী এই নায়িকার বিয়ে হয়েছিল। ময়ূরপঙ্খী বিমানটির ক্রুদের বরাত দিয়ে বলা হচ্ছে, শিমলার ওপর রাগ করেই নাকি বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটিয়েছিলেন পলাশ। আসলে কী ছিল শিমলার সঙ্গে তার সম্পর্ক?

চিত্রনায়িকা শিমলা হলো ‘অবাধ্য সন্তান’ পলাশের দ্বিতীয় স্ত্রী। ২০১৮ সালের ৩ মার্চ তাদের বিয়ে হয়। এর আগে মেঘলা নামে বগুড়ার এক মেয়ের সঙ্গে পলাশের প্রথম বিয়ে হয়। সেই স্ত্রীর সঙ্গেও তার বিচ্ছেদ হয়ে যায়। প্রথম স্ত্রীর ঘরে পলাশের একটি ছেলে রয়েছে বলে জানা গেছে। বেপরোয়া জীবনে অভ্যস্ত পলাশ ২০১২ সালে ১৮ বছর বয়সে একটি অপহরণ মামলায় র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। বাড়ির সঙ্গেও তার সম্পর্ক ভালো ছিল না। নিজের ‘অপহরণ ঘটনা’ সাজিয়ে টাকা আদায়ের ঘটনাও ঘটিয়েছিলেন।

এদিকে গণমাধ্যমে আজ সোমবার নায়িকা শিমলা এসব ঘটনা স্বীকার করেছেন। চলচ্চিত্র পরিচালক রাশিদ পলাশের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে পলাশের সঙ্গে তার পরিচয় হয় বলে জানিয়েছেন তিনি। ডিভোর্সের কারণ হিসেবে শিমলা পলাশের ‘মানসিক সমস্যা’র কথা জানিয়েছেন। গত নভেম্বরের ৬ তারিখে শিমলা তাকে ডিভোর্স দেন। তালাকের কারণ হিসেবে ‘দাম্পত্যজীবনে সুখী হতে না পারা’, ‘মনের অমিল’, ‘বনিবনা না হওয়া’, ‘পারিবারিক অশান্তি’ এবং ‘মানসিক নির্যাতন’ এর কথা উল্লেখ করেছেন এই চিত্রনায়িকা।

এই মুহূর্তে শিমলা ভারতের মুম্বাইয়ে অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে। বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনার বিষয়েও তিনি অবগত। এই ঘটনাকে দেশের জন্য ‘দুঃখজনক’ বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। সেইসঙ্গে প্রয়োজনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহযোগিতা করতেও প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন শিমলা। এদিকে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, জীবনের শেষ দিকে বিদেশে পাঠানোর কথা বলে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে যাচ্ছিলেন পলাশ।

চমেক হাসপাতালের মর্গে নিহত যুবকের লাশ

বিমান ছিনতাই করতে গিয়ে কমান্ডো অভিযানে নিহত ছিনতাইকারীর মৃতদেহের ময়নাতদন্ত শেষ হয়েছে। মৃতদেহটি এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের সহকারি কমিশনার (কর্ণফুলী জোন) জাহিদুল ইসলাম।

তিনি বলেন, কমান্ডো অভিযানে নিহত ছিনতাইকারী কথিত মাহাদীর মরদেহ রবিবার রাতে আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আমরা প্রথমে সুরতহাল স¤পন্ন করি। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ চমেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে প্রেরণ করি। সেখানে ময়নাতদন্ত শেষে তার লাশ মর্গের হিমঘরে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সুরতহাল প্রতিবেদন সম্পর্কে তিনি বলেন, লাশের নাভির উপরে ডানপাশে গুলিবিদ্ধ হওয়ার চিহ্ন আছে। এছাড়া শরীরে আর কোথাও আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে না আসায় এ ব্যাপারে আর কিছুই বলতে পারেননি জাহিদুল ইসলাম।
নগরীর পতেঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) উৎপল বড়ুয়া বলেন, আমরা লাশের সুরতহাল করে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছিলাম। ময়নাতদন্ত শেষ হয়েছে। যেহেতু লাশের কোনো মালিক পাওয়া যায়নি বা দাবিদার কেউ আসেনি, সেজন্য এটা হিমঘরে রেখেছি। যদি লাশের দাবিদার আসে, যাচাই বাছাই সাপেক্ষে লাশটা তাদের কাছে হস্তান্তর করব।

ওসি উৎপল বড়ুয়া বলেন, নিহত ব্যক্তির নাম-ঠিকানা পাওয়ার পর পতেঙ্গা থানা পুলিশের একটি টিম নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশে সোমবার দুপুরে রওনা দিয়েছিল। এখন তারা নিহত পলাশের বাবাকে সঙ্গে নিয়ে আবার চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন।
এদিকে বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টায় সন্ত্রাস দমন ও বিমান নিরাপত্তা আইনে নিহত পলাশসহ অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে আসামী করে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানায় মামলা করেছে সিভিল এভিয়েশন।

অভিযানের পর জানানো হয়েছিল বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী ব্যক্তির নাম মাহাদি। বয়স ২৬-২৭ বছর। তবে সোমবার র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম মো. পলাশ আহমেদ। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের দুধঘাটা এলাকার পিয়ার জাহান সরদারের ছেলে পলাশ।

রোববার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজ বিজি-১৪৭ (বোয়িং-৭৩৭) ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাবার কথা ছিল। বিকেলে ঢাকা থেকে উড্ডয়নের পর উড়োজাহাজটি ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে। এসময় দুজন কেবিন ক্রুকে জিম্মি করে রাখার কথাও বলা হয়।

বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিমানটি চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। তখন পাইলটসহ যাত্রীদের নিরাপদে নামিয়ে আনা হয়। শ্বাসরুদ্ধকর উত্তেজনার মধ্যে সন্ধ্যার দিকে মাত্র ৮ মিনিটের কমান্ডো অভিযানে ছিনতাইকারী নিহত হয়। নিহত ব্যক্তির কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া আগ্নেয়াস্ত্র বা জব্দ করা অন্য কোনো আলামত পুলিশের কাছে এখনও হস্তান্তর করা হয়নি বলে জানান ওসি।

পতেঙ্গা থানায় পলাশের বিরুদ্ধে মামলা

চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের দুবাইগামী উড়োজাহাজ ময়ুরপঙ্খী ছিনতাইয়ের অভিযোগে নিহত পলাশের বিরুদ্ধে আজ সোমবার পতেঙ্গা থানায় সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ সন্ত্রাস দমন অধ্যাদেশ ও বিমান নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা দায়ের করার বিষয়টি পতেঙ্গা থানার ওসি উৎপল বড়ুয়া গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

আপনার মতামত দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.