--- বিজ্ঞাপন ---

মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে: আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী

0
নিউজ ডেস্ক: হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহামান্য আমীর ও দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী ও হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, বর্তমানে শিরক বিদআত ও কুফরে আমাদের সমাজ ভরপুর হয়ে গেছে। ইহুদী-খ্রিস্টান ও ইসলামবিদ্বেষী গোষ্টী মুসলমানদের ঈমান আকীদা, তাহজীব তামাদ্দুন ধ্বংস করতে প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছে। এমন অবস্থায় ইসলামকে হেফাজত করতে এবং আমাদের পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের কল্যানে তাওহীদ ও রিসালতের অনুপম আদর্শ পরিপূর্ণ অনুসরণ করা ছাড়া বিকল্প নেই। তাই বিশ্বনবী সা. এর পবিত্র শান মান মর্যাদা ও মুসলমানদের জান-মাল এবং ঐতিহ্য রক্ষায় মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
বিবৃতিতে হেফাজত নেতৃদ্বয় আগামী ২৮শে ফেব্রুয়ারি ও ১লা মার্চ ২০১৯ ইং রোজ বৃহস্পতি ও জুমাবার, চট্টগ্রাম জমিয়তুল ফালাহ ময়দানে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য শানে রেসালত (সঃ) সম্মেলন সফল করার জন্য সর্বস্তরের ওলামায়ে কেরাম ও তৌহিদী জনতার প্রতি আহবান জানিয়েছেন।
আজ বুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক যৌথ বিবৃতিতে হেফাজত নেতৃদ্বয় আরো বলেন, বর্তমানে মুসলমানদের ঈমান-আক্বিদা বিনষ্ট করার বহুমুখী চক্রান্ত চলছে। তথাকথিত আহমদিয়া মুসলিম জামাত কাদিয়ানী ও নাস্তিক্যবাদী অপশক্তি গুলো ইসলামের বিরুদ্ধে নানা ধরনের ফিতনা-ফ্যাসাদ সৃষ্টি করে সাধারণ মুসলমানদের ঈমান হরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
নেতৃদ্বয় আরো বলেন, বর্তমানে খতমে নবুওয়ত অস্বীকারকারী কাদিয়ানীরা সমস্ত বাতিল শক্তির সাথে একজোট হয়ে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের শানে বেয়াদবি করে যাচ্ছে। কাদিয়ানীরা কাফের, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে তাদের কাফের ঘোষণা করা হয়েছে। বাংলাদেশেও ১৯৯৩ সালে হাইকোর্টের রায় অনুযায়ী কাদিয়ানীরা কাফের সাব্যস্থ হয়েছে। আমরা সরকারকে তা অবিলম্বে রাষ্ট্রীয়ভাবে কার্যকর করার আহবান জানাচ্ছি।
নেতৃদ্বয় বলেন, বর্তমান বিশ্বে ইসরাইলের ইহুদী, ভারতের হিন্দু, চীন ও মায়ানমারের বৌদ্ধসহ সাম্রাজ্যবাদী অপশক্তি গুলো সকলেই সমানভাবে মুসলিম নির্যাতনে আজ সর্বশক্তি প্রয়োগ করছে। মুসলমানদের রক্ত ঝড়াতে কেউ পিছিয়ে নেই। বর্তমানে কাশ্মীর, ফিলিস্তিন ও উইগোর শত শত নিরীহ মুসলমানদের হত্যা করা হচ্ছে। আমরা এসব হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এবং সারা বিশ্বে মুসলিম নির্যাতন ও ধর্মীয় এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে চলমান অনৈতিক আগ্রাসন বন্ধ করতে বিশ্বনেতাদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি।

আপনার মতামত দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.